সোমবার , ২৮ মে ২০১৮
শিরোনাম

আজ থেকে সার্ক সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু

saarc৭১ বাংলাঃ

আজ শনিবার থেকে নেপালের রাজধানী কাঠমাণ্ডুতে শুরু হচ্ছে দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থার (সার্ক) শীর্ষ সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা। প্রোগ্রামিং কমিটির বৈঠকের মধ্য দিয়ে শুরু হচ্ছে ২০১৪ সালের সার্ক শীর্ষ সম্মেলন।

আগামীকাল রবিবার ও পরদিন সোমবার বৈঠক হবে সদস্য আট দেশের সচিবদের। মঙ্গলবার পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকের পর বুধবার ও বৃহস্পতিবার হবে সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্র/সরকারপ্রধানদের উপস্থিতিতে শীর্ষ সম্মেলন পর্ব।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, হিমালয় কন্যা নেপালে সার্কের এবারের সম্মেলন দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ২০১১ সালের নভেম্বরে মালদ্বীপের আদ্দুতে সর্বশেষ সার্ক শীর্ষ সম্মেলন হয়েছিল। এরপর এ অঞ্চলের প্রেক্ষাপট বদলেছে, পারস্পরিক সহযোগিতার গুরুত্বও অনেক বেড়েছে। যৌথ উদ্যোগ গ্রহণ ও সম্মিলিতভাবে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সার্কের সদস্য আটটি দেশের রাষ্ট্র/সরকারপ্রধানদের আগ্রহ আগের যেকোনো সময়ের তুলনায়ও বেশি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, আসিয়ান বা অন্যান্য আঞ্চলিক জোটের মতো সার্ক জনপ্রত্যাশা পূরণ করতে পারছে না- এমন সমালোচনা আছে। কিন্তু ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি গত মে মাসে শপথ অনুষ্ঠানেই সার্ক নেতাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। এরপর তিনি বিভিন্ন ফোরামে এ অঞ্চলের দেশগুলোকে নিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্নের কথা বলেছেন। ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, এবারের সম্মেলনে সার্কের সদস্য দেশগুলোর মধ্যে মোটরযান ও রেল চলাচল এবং বিদ্যুৎ খাতে সহযোগিতা বিষয়ে তিনটি চুক্তি সই হওয়ার কথা রয়েছে। এ তিনটি চুক্তি হলে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে সহযোগিতার ক্ষেত্রে রাতারাতি পরিবর্তন আসবে।

আজ সার্কের প্রোগ্রামিং কমিটির বৈঠকে সম্মেলনের সম্ভাব্য এজেন্ডা ও চুক্তিগুলোর বিষয়ে আলোচনা হবে। প্রোগ্রামিং কমিটি আজকের বৈঠকের সিদ্ধান্ত আগামীকাল সচিবদের বৈঠকে উঠবে। এরপর সচিবদের সিদ্ধান্ত যাবে মন্ত্রীদের বৈঠকে। সবশেষে সার্কের সদস্য দেশগুলোর সরকার-রাষ্ট্রপ্রধানদের উপস্থিতিতে চুক্তিগুলো স্বাক্ষরিত হতে পারে।

আগামী বুধবার সার্ক নেতারা আঞ্চলিক সহযোগিতার বিষয়ে গুরুত্ব দেবেন। আঞ্চলিক সংযোগকে (কানেক্টিভিটি) বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ। জলবায়ু পরিবর্তন ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলার ওপরও ঢাকা বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে।

সার্ক রিট্রিট হবে ধুলিখেলের দুয়ারিকা রিসোর্টে : স্থানীয় বাসিন্দারা বলেছে, হিমালয়ের পর্বতগুলো দেখার জন্য অন্যতম সেরা স্থান পুরনো শহর ধুলিখেল। কাঠমাণ্ডু থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে এর অবস্থান। সেখানকার দুয়ারিকা রিসোর্টকেই সার্ক নেতাদের রিট্রিটের জন্য বেছে নিয়েছে নেপাল সরকার। রিট্রিট পর্বে সার্ক নেতারা একান্তে নিজেদের ভাবনা বিনিময়ের সুযোগ পান। তাঁদের কাঠমাণ্ডু থেকে হেলিকপ্টারে করে সেখানে নিয়ে যাওয়া হতে পারে।

নিরাপত্তার চাদরে ঘেরা কাঠমাণ্ডু : সার্ক শীর্ষ সম্মেলন উপলক্ষে গতকাল থেকেই কাঠমাণ্ডুতে পৌঁছতে শুরু করেছেন সদস্য দেশগুলোর প্রতিনিধিরা। এ সম্মেলনে সদস্য আটটি দেশের রাষ্ট্র/সরকারপ্রধানরা ছাড়াও পর্যবেক্ষক দেশ চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন। সম্মেলন উপলক্ষে কাঠমাণ্ডুর নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী সুশীল কৈরালা গতকাল সার্ক শীর্ষ সম্মেলনের ভেন্যু সিটি হল পরিদর্শন করেছেন। সম্মেলন ছাড়াও পর্যটন মৌসুমের কারণে বিপুলসংখ্যক বিদেশি এসেছে কাঠমাণ্ডুতে।

সম্মেলন উপলক্ষে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করারও চেষ্টা চালাচ্ছে নেপাল সরকার। দেশটিতে বিদ্যুৎ ঘাটতি ব্যাপক। অনেক সময় দিনে ১০-১১ ঘণ্টাও বিদ্যুৎ থাকে না। এ কারণে রাত ৮টাতেই কাঠমাণ্ডুর দোকানপাট, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়। গতকাল রাতে এ প্রতিবেদন লেখার সময়ও কাঠমাণ্ডুর অনেক এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ ছিল না।

BIGTheme.net • Free Website Templates - Downlaod Full Themes