সোমবার , ২৮ মে ২০১৮
শিরোনাম

হরতালে সারাদেশে জামায়াত-শিবিরের ব্যাপক তাণ্ডব, পুলিশকে ধাওয়া

Sylhet Hortal Jamat (1)৭১ বাংলা: মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতের আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসির আদেশের প্রতিবাদে ডাকা দ্বিতীয় দফা হরতালের প্রথম দিনের শুরু থেকেই সিলেট সহ সারাদেশের বিভিন্ন জেলায় তাণ্ডব চালাচ্ছে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা। হরতালের শুরুতেই পুলিশের ওপর হামলার, সড়ক অবরোধ, গাড়ি ভাঙচুর ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় তারা।

রোববার হরতালের শুরুতেই নগরীর চৌকিদেখিতে সড়ক অবরোধ করে পুলিশের উপর হামলা চালায় শিবির। এছাড়া নয়াসড়কে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে জামায়াত-শিবির। এদিকে শহরতলীর লামাকাজি এলাকায় (ফতেহপুর) ৬টি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়।

Sylhet Hortal Jamat

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, রোববার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে নগরীর চৌকিদেখি এলাকায় রাস্তার ওপর ইট ও গাছের টুকরো ফেলে এবং টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করে শিবির। এসময় একটি সিএনজি অটোরিকশাযোগে কয়েকজন পুলিশ এলে অবরোধকারীরা উল্টো পুলিশকে ধাওয়া করে। তারা ৪টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ত্রাসের সৃষ্টি করে।

সকাল সোয়া ৭টার দিকে নগরীর কাজিটুলা থেকে মিছিল বের করে জামায়াত ও শিবির। মিছিল নিয়ে নয়াসড়ক পয়েন্টে এসে তারা রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ করে। কিছুক্ষণ বিক্ষোভ শেষে পুলিশ আসার আগেই তারা সটকে পড়ে।

এদিকে শহরতলীর লামাকাজির ফতেহপুর এলাকায় সড়ক অবরোধ করে ৬টি গাড়ি ভাঙচুর করেছে হরতালকারীরা। পৌনে ১১টায় তারা ৩টি ট্রাক, ২টি সিএনজি অটোরিকশা ও একটি টেম্পু ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে পুলিশ সাজোয়া যান নিয়ে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

সিলেট মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানার ওসি মো. আখতার হোসেন বলেন, ‘জামায়াত-শিবির গাড়ি ভাঙচুরের চেষ্টা চালায়। পুলিশ তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।’

এদিকে প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, নগরীর মীরাবাজারে বেলা সোয়া ১১টায় ১৫-২০টি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে জামায়াত-শিবির। এসময় এলাকায় ব্যাপক আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। হাতবোমা ফাটিয়ে তারা দ্রুত সটকে পড়ে।

এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. রহমত উল্লাহ বলেন, ‘দুয়েকটি বিক্ষিপ্ত ঘটনার মধ্য দিয়ে হরতাল চলছে। নাশকতা ঠেকাতে পুলিশ সতর্ক রয়েছে।’

এআর

BIGTheme.net • Free Website Templates - Downlaod Full Themes