শনিবার , ২৬ মে ২০১৮
শিরোনাম

২৮ অক্টোবর হুকুমের আসামি হিসেবে শেখ হাসিনার বিচার হবেই: শাহ মোয়াজ্জেম

Manobadhikar_Porishodঢাকা: সাবেক উপ-প্রধান মন্ত্রী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যার শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেছেন, ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা ‍যুদ্ধ করতে যায়নি। সেদিন তারা গিয়েছিল সমাবেশ করতে। কিন্তু, আচমকা আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসী বাহিনী লগি-বৈঠার তাণ্ডব চালিয়ে জামায়াত শিবিরের ১২ জন নেতাকর্মীকে নির্মমভাবে হত্যা করে। এর দায় শেখ হাসিনাকে অবশ্যই নিতে হবে এবং আগামিতে হুকুমের আসামি হিসেবে তাকে কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।

মঙ্গলবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ মানবাধিকার পরিশোধ আয়োজিত ‘রক্তাক্ত ২৮ অক্টেবর : ভুলন্ঠিত মানবাধিকার ও গনতন্ত্ ‘ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, আজকে লতিফ সিদ্দিকীর পেতাত্তারা দেশে লুকিয়ে আছে। পারলে তাদের ধরেন। পারবেন না। কারণ, আপনি নিজেই একটা অপরাধ। লতিফ সিদ্দিকী আপনার ছেলের বিরুব্ধে কথা বলায় আপনার আঁতে ঘা লেগেছে।

তিনি বলেন, আজকের প্রধানমন্ত্রীকে আমি উপদেশ দিয়েছিলাম। কিন্তু এ কারণে তিনি আমাকে তার বাবার হত্যার হুকুমের আসামি করেছেন। দেশে যে অশান্তি চলছে তা থেকে বাঁচতে চাইলে শেখ হাসিনাকে ক্ষমতা থেকে বিদায় দেয়ার কোন বিকল্প নেই।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত অন্য বক্তাদের মধ্যে ২৮ অক্টেবর নিহত হওয়া সাইফুল্লা মুহাম্মদ মাসুমের মা শমছুন্নার রুবি বলেন, আমার মাসুম ছোট বেলা থেকেই মাসুম ছিল। সে মানুষের অনেক উপকার করেছে। কী নির্মমভাবে বাঁশ দিয়ে খুচিয়ে খুচিয়ে আমার মাসুমকে হত্যা করেছে। তার জন্য আজও মানুষ কাঁদে। সে দিন শুধু আমার মাসুমকে নয় মুজাহিদসহ আরও অনেককে নির্মমভাবে হত্যা করেছে। এই হত্যার নির্দেশ দাতা শেখ হাসিনা। তাকে বিচারের আওতায় আনতে হবে।

ড. দেওয়ান এম এ সাজ্জাদের সভাপতিত্বে এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শমসুজ্জামান দুদু, কল্যান পার্টির চেয়ারম্যান মেজর(অব.) সৈয়দ ইব্রাহীম বীরপ্রতীক, বিএফইউজের সভাপতি শওকত মাহমুদ, ডিইউজের সভাপতি কবি আবদুল হাই শিকদার, নিহত গোলাম কিবরিয়া শিপনের বাবা তাজুল ইসলাম, বিশিষ্ঠ মানবাধিকার কর্মী এ্যাডভোকেট গোলাম কিবরিয়া, শাহ মাহফুজুর রহমানসহ অন্যরা।

BIGTheme.net • Free Website Templates - Downlaod Full Themes