Tuesday , 4 August 2020
শিরোনাম
পথশিশুদের ঈদ আনন্দ নিয়ে কি আমরা ভেবেছি ?

পথশিশুদের ঈদ আনন্দ নিয়ে কি আমরা ভেবেছি ?

hqdefault৭১বাংলা: রাজধানীসহ সারা দেশে কয়েক লাখ পথশিশু রয়েছে যাদের ৮০ ভাগেরই জন্ম ফুটপাথে। বলা চলে পথে জন্ম, পথেই তাদের বসবাস। স্বজনহারা অনেক শিশুও শহরে এসে এই তালিকায় যুক্ত হচ্ছে। অবহেলা-অযত্নে বেড়ে ওঠা এই শিশুদের ‘টোকাই’, ‘পথকলি’, ‘ছিন্নমূল’ বা ‘পথশিশু’ বলা হয়। বিআইডিএস ও ইউনিসেফের এক গবেষণা মতে, বাংলাদেশে ৯ লাখ ৭৯ হাজার ৭২৮ জন পথশিশু রয়েছে। কেবল ঢাকা শহরে রয়েছে ৭ লাখ পথশিশু। চলতি বছর শেষে এই সংখ্যা দাঁড়াবে ১১ লাখ ৪৪ হাজার ৭৫৪ জনে। আর ২০২৪ সাল নাগাদ সংখ্যাটা হবে ১৬ লাখ ১৫ হাজার ৩৩০ জন। পথশিশুদের ৮৫ শতাংশই কোনো না কোনোভাবে মাদক সেবন করে। ১৯ শতাংশ হেরোইন, ৪৪ শতাংশ ধূমপান, ২৮ শতাংশ বিভিন্ন ট্যাবলেট এবং ৮ শতাংশ ইনজেকশনের মাধ্যমে নেশা করে থাকে। ঢাকায় এদের কমপক্ষে ২২৯টি মাদকের স্পট রয়েছে। অন্য এক জরিপে মাদকাসক্ত শিশুদের মাদক গ্রহণ ও বিক্রয়ে ৪৪ শতাংশ, পিকেটিংয়ে ৩৫ শতাংশ, ছিনতাই, নেশাদ্রব্য বিক্রয়কারী এবং অন্যান্য অপরাধে জড়িত ২১ শতাংশ পথশিশুর যুক্ত থাকার তথ্য উঠে এসেছে।

এ কথা সত্য যে, পথশিশুদের অপরাধ প্রবণতা কমাতে সরকারি-বেসরকারি কিছু প্রতিষ্ঠান কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রীও শিশুবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির কথা বলে আসছেন। তবে যা হচ্ছে তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। এই সংখ্যাটা বাড়াতে হবে।

সামনে ঈদ‍ুল আযহা পথশিশুদের ঈদ যেন পথে না হয় সে বিষয়টি আমরা যারা বিত্তবান আছি তাদের ভাবতে হবে। আমাদের সমাজে প্রচুর ধনী ব্যক্তি আছেন যারা তাদের বাচ্চাদের ঈদ কিনা কাটায় প্রচুর অর্থ ব্যয় করেন। অনেক টাকা খরচ করেন। আর এসব খরচ থেকে যদি কিছু টাকা বাঁচিয়ে পথশিশুদের ঈদ উৎসব করার স্বার্থে দেন তবে তাদের ঈদ আনন্দ জমে উঠবে। অন্য ৮-১০ জন শিশুর সঙ্গে পথশিশুরাও ঈদ আনন্দে মেতে উঠতে পারবে। পথশিশুদের মুখে হাসি ফোটাতে বেশি অর্থের প্রয়োজন নয়, শুধু প্রয়োজন একটু সহযোগিতার মনোভাব। অথচ সে সহযোগিতার মনোভাবেরই আমাদের খুব অভাব। আমরা নিজেদের জন্য অনেক খরচ করি। কিন্তু একবারও ভাবি না এসব শিশুর কথা। অথচ আমাদের একটু সাহায্য এদের মুখে হাসি ফোটাতে পারে। আমাদের মনে রাখা উচিত এসব পথশিশু আমাদের সমাজের সন্তান।

এসি পি